আসরের নামাজের সময় শুরু এবং আসরের নামাজের পর তাসবিহ

আসরের নামাজের পর তাসবিহ

আসরের নামাজের পর তাসবিহ

  • ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ
  • ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ
  • ৩৩ বার আল্লাহু আকবার

এ মোট ৯৯ বার তাসবিহ পাঠের পর “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, লাহুল মুলকু ওয়া লাহুল হামদু ওয়া হুয়া আলা কুল্লি শাইয়িন কাদির” পাঠ করে দোয়া করা।
এই তাসবিহ পাঠের ফজিলত অনেক।

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, “যে ব্যক্তি প্রত্যেক ফরজ নামাজের পর তেত্রিশ বার সুবহানাল্লাহ, তেত্রিশ বার আলহামদুলিল্লাহ এবং তেত্রিশ বার আল্লাহু আকবার বলবে, তার সব পাপ ক্ষমা করে দেওয়া হবে, যদিও গোনাহ সমুদ্রের ফেনা পরিমাণ হয়।” (সহিহ মুসলিম)

আসরের নামাজের পর তাসবিহ পাঠের আরেকটি নিয়ম হলো:

  • ১০ বার সুবহানাল্লাহ
  • ১০ বার আলহামদুলিল্লাহ
  • ১০ বার আল্লাহু আকবার


এ মোট ৩০ বার তাসবিহ পাঠ করে “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, লাহুল মুলকু ওয়া লাহুল হামদু ওয়া হুয়া আলা কুল্লি শাইয়িন কাদির” পাঠ করে দোয়া করা। এই নিয়মে তাসবিহ পাঠ করলেও সমান ফজিলত রয়েছে।

আসরের নামাজের সময় শুরু
আসরের নামাজের ওয়াক্ত শুরু ও শেষ
আসরের নামাজের সময় কখন শুরু হয়?

নামাজের ওয়াক্ত শুরু

আসরের নামাজের সময় শুরু হয় যখন সূর্য মধ্য দিগন্ত থেকে পশ্চিম দিকে হেলে পড়ে এবং ছায়ার দৈর্ঘ্য নিজের দৈর্ঘ্যের সমান হয়। এই সময়কে “আসরের প্রথম সময়” বলা হয়। আসরের প্রথম সময়ের সূচনা এবং শেষ সময়ের মধ্যে যেকোনো সময়ে আসরের নামাজ আদায় করা যায়।

আসরের নামাজের সময় শেষ

আসরের প্রথম সময়ের শেষ হয় যখন ছায়ার দৈর্ঘ্য নিজের দৈর্ঘ্যের দ্বিগুণ হয়। এই সময়কে “আসরের শেষ সময়” বলা হয়। আসরের শেষ সময়ের পরে আসরের নামাজ আদায় করা মাকরুহ।

আসরের নামাজের সময় সূর্যের অবস্থান এবং স্থানের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। বাংলাদেশের ঢাকায় আজকের (২১ জানুয়ারি ২০২৪) আসরের নামাজের সময় শুরু হয় বিকেল ৪:০০ মিনিটে এবং শেষ হয় বিকেল ৫:৩৫ মিনিটে।

আরো পড়ুনঃ ৪ রাকাত নফল নামাজ পড়ার নিয়মজোহরের নামাজের শেষ সময়

আসরের নামাজের নিয়ত

আসরের চার রাকাত ফরজ নামাজের নিয়ত
আসরের নামাজের নিয়ত

আসরের চার রাকাত ফরজ নামাজের নিয়ত

নিয়ত করছি আল্লাহর ওয়াস্তে চার রাকাত আসরের ফরজ নামাজ, ওয়াক্তে ওয়াজিব, ইমামের (অথবা একা) পিছনে আদায় করার জন্য। নিয়ত করার পর, আল্লাহু আকবার বলে কেবলামুখী হয়ে নামাজ শুরু করতে হবে।

আরবিতে নিয়ত

উচ্চারণ: নাওয়াইতু আন উসাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা আরবাআ রাকাআতি সালাতিল আসরি ফারদান ইমামান (অথবা আহাদান) ওয়াজিবান খালিসল্লিল্লাহি তাআলা।

অর্থ: আমি আল্লাহর জন্য চার রাকাত আসরের ফরজ নামাজ, ওয়াক্তে ওয়াজিব, ইমামের (অথবা একা) পিছনে আদায় করার জন্য নিয়ত করছি। আল্লাহর জন্যই খাঁটি করে।

নিয়ত করার সময়

  • নামাজ শুরু করার আগে নিয়ত করতে হবে।
  • নিয়ত মনে মনে করতে হবে, উচ্চারণ করা জরুরি নয়।
  • নিয়তে চার রাকাত ফরজ নামাজের কথা উল্লেখ করতে হবে।
  • নিয়তে ওয়াক্তে আদায় করার কথা উল্লেখ করতে হবে।
  • নিয়তে ইমামের পিছনে আদায় করার কথা উল্লেখ করতে হবে, যদি ইমামের পিছনে নামাজ পড়া হয়।

নামাজের নিয়ত হলো নামাজের মূল। নিয়ত ছাড়া নামাজ আদায় হয় না। তাই নামাজের নিয়ত সঠিকভাবে করা জরুরি।

আরো পড়ুনঃ ফজরের সুন্নত কি কাযা করতে হবে। ফজরের নামাজের দোয়া সমূহ

এশার নামাজ কয় রাকাত ও নিয়ত

আসরের নামাজ কত রাকাত

আসরের নামাজ চার রাকাত। এর মধ্যে চার রাকাত ফরজ এবং চার রাকাত সুন্নত। ফরজ নামাজের আগে চার রাকাত সুন্নত পড়া উত্তম। তবে মুসাফির অবস্থায় থাকলে চার রাকাত ফরজকে সংক্ষিপ্ত করে দুই রাকাত পড়তে পারেন।

আসর নামাজের সুন্নত কত রাকাত?

আসর নামাজের সুন্নত চার রাকাত। এটি গায়রে মুওয়াক্কাদা, তাই আদায় করা উত্তম। রাসুল (সা.) নিজেও এই নামাজ আদায় করেছেন। আলী ইবনে আবু তালিব (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, “আমি রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি আসরের নামাজের চার রাকাত সুন্নত আদায় করবে, সে যেন সারা রাত জেগে নফল নামাজ পড়ে।'” (তিরমিজি)

আসরের সুন্নত নামাজ ফরজের আগে আদায় করা উত্তম। তবে ফরজের পরেও পড়া যায়।

আরো পড়ুনঃ মাগরিবের নামাজ কয় রাকাত একাকী নামাজে কেরাত পড়ার নিয়ম

7 thoughts on “আসরের নামাজের সময় শুরু এবং আসরের নামাজের পর তাসবিহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *