Site icon

ঈদুল আজহার নামাজের নিয়ম

ঈদুল আজহার নামাজ
ঈদুল আজহার নামাজের নিয়ম

ঈদুল আজহার নামাজের নিয়ম

ঈদুল আজহার নামাজের নিয়ম:
নিয়ত:

نَوَيْتُ أَنْ أُصَلِّي للهِ تَعَالَى رَكْعَتَيْنِ صَلَاةَ الْعِيْدِ الْأَضْحَى مَعَ سِتِّ التَكْبِيْرَاتِ وَاجِبُ اللهِ تَعَالَى اِقْتَضَيْتُ بِهَذَا الْإِمَامِ مُتَوَجِّهًا إِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِيْفَةِ اللهُ أَكْبَرْ

অর্থ:

আমি ঈদুল আযহার অতিরিক্ত ছয় তাকবিরের সাথে দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ এই ইমামের পেছনে কিবলামুখী হয়ে আল্লাহর জন্য আদায় করছি।

নামাজের পদ্ধতি:

তাকবীরে তাহরিমা: ঈদের নামাজে নিয়ত করে তাকবীরে তাহরিমা ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত বাঁধা।
সানা: পড়া ।
অতিরিক্ত তিন তাকবীর: এক তাকবীর থেকে আরেক তাকবীরের মধ্যে তিন তাসবীহ পরিমাণ সময় বিরত থাকা। প্রথম ও দ্বিতীয় তাকবীরের পর ‘সুবহানাল্লাহ’ এবং তৃতীয় তাকবীরের পর পড়া।
কিরাত: ফাতিহা সূরা ও অন্য কোন সূরা বা আয়াত তিলাওয়াত করা।
রুকু: ‘আল্লাহু আকবার’ বলে রুকুতে যাওয়া। রুকুতে থাকাকালীন ‘সুবহানা রব্বিয়াল আ’লা’ বলা।
সিজদা: ‘সামি’আল্লাহু লিম্যান হামাদাহু’ শুনে সিজদায় যাওয়া। সিজদায় থাকাকালীন ‘সুবহানা রব্বিয়াল আ’লা’ বলা।
কায়ম: ‘রব্বি ইগফির লি’ বলে কায়ম হওয়া।
দ্বিতীয় রাকাত: প্রথম রাকাতের মতোই আবার নামাজ আদায় করা।
সলাম: দুইবার ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ’ বলে সালাম ফেরা।
ঈদের নামাজের সুন্নত:

ঈদের দিন সকালে গোসল করা।
নতুন পোশাক পরা।
সুগন্ধি ব্যবহার করা।
ঈদগাহে হেঁটে যাওয়া।
জামাতে নামাজ আদায় করা।
ঈদের তাকবীর বলা।
ঈদের দিন সদকা দেওয়া।
আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবান্ধবের সাথে দেখা করা।
ঈদের নামাজের মাকরূহ:

ঈদের দিন রোজা রাখা।
ঈদের দিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার আগে ঈদের তাকবীর বলা।
ঈদের দিন কোন কাজ করা যা ঈদের আনন্দ নষ্ট করে।

ঈদের তাকবীর:

ঈদের দিন সূর্যোদয়ের পর থেকে

ঈদের নামাজ কি ফরজ না ওয়াজিব

ঈদের নামাজ কি ফরজ না ওয়াজিব

ঈদের নামাজ কি ফরজ না ওয়াজিব

ঈদের নামাজ ওয়াজিব, ফরজ নয়।

ধর্মীয় গ্রন্থ ও হাদিস থেকে প্রমাণ:

হাদিস: হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, “যে ব্যক্তি ঈদের দুই রাকাত নামাজ আদায় করবে, তার জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে পুরস্কার আছে।” (সহিহ বুখারি ও মুসলিম)
ফিকহের গ্রন্থ: ইসলামের সকল প্রধান ফিকহি মতাদর্শ ঈদের নামাজকে ওয়াজিব বলে মনে করে।
ওয়াজিব ও ফরজের পার্থক্য:

ফরজ: যেসব কাজ আল্লাহর আদেশ মোতাবেক অবশ্যই করতে হবে, তাকে ফরজ বলে। ফরজ কাজ না করলে গুনাহ হবে এবং আখিরাতে শাস্তি হবে।
ওয়াজিব: যেসব কাজ আল্লাহর আদেশ মোতাবেক করা উচিত, তাকে ওয়াজিব বলে। ওয়াজিব কাজ না করলে গুনাহ হবে, তবে আখিরাতে শাস্তি হবে না।
ঈদের নামাজ ওয়াজিব হলেও:

ঈদের নামাজ আদায় করা প্রতিটি মুসলিমের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
ঈদের নামাজ আদায় না করলে গুনাহ হবে।
ঈদের নামাজ আদায়ের অনেক ফজিলত রয়েছে।
সুতরাং, ঈদের দিন ঈদগাহে গিয়ে জামাতে ঈদের নামাজ আদায় করা উচিত।

ঈদের নামাজের নিয়মাবলী:

নিয়ত: ঈদের নামাজের নিয়ত করার সময় উল্লেখ করতে হবে যে এটি ওয়াজিব নামাজ।
রাকাত: ঈদের নামাজ দুই রাকাত।
তাকবীর: ঈদের নামাজে মোট ছয়টি তাকবীর বলা হয়। প্রথম রাকাতে তিনটি এবং দ্বিতীয় রাকাতে তিনটি।
কেরাত: ঈদের নামাজে ফাতিহা সূরা ও অন্য যেকোন সূরা বা আয়াত তিলাওয়াত করা যেতে পারে।
সালাম: ঈদের নামাজ শেষে দুইবার সালাম ফেরা হয়।

আরো জানুন , কুরবানির করার দোওয়া।

Exit mobile version