এশার বেতের নামাজের নিয়তএশার বেতের নামাজের নিয়ত
বেতের নামাজের নিয়ত বাংলা

বেতের নামাজের নিয়ত বাংলা
এশার বেতের নামাজের নিয়ত

নিশ্চয়ই আমি নিয়ত করছি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, আজকের এশার ফরজ নামাজের তিন রাকাআত বিতর নামাজ আদায় করার। অতঃপর আল্লাহর নামে শুরু করছি।

বাংলা উচ্চারণ

নাওয়াইতু আন্নুসাল্লিয়া লিল্লাহি তায়ালা বিদ্দিনিয়া সুন্নাতু বিতরি আরবাআ রাকাআতুন মুতাওয়াক্কিয়াতুন বিল্লাহি তায়ালা ওয়াজিবাতান ফারদুল ওয়াজিবি। আল্লাহু আকবর।

অর্থ

আমি নিয়ত করছি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, আমার দ্বীন ইসলামে, সুন্নাত বিতর নামাজের চার রাকাআত, যা আল্লাহর জন্য ফরজ, ওয়াজিবুল ওয়াজিব। আল্লাহ মহান।

বিতর নামাজ পড়ার নিয়ম ও দোয়া
৩ রাকাত বিতর নামাজ পড়ার নিয়ম
বিতর নামাজ পড়ার নিয়ম

বিতর নামাজ তিন রাকাআত বিশিষ্ট।

নিশ্চয়ই আমি নিয়ত করছি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, আজকের এশার ফরজ নামাজের তিন রাকাআত বিতর নামাজ আদায় করার। অতঃপর আল্লাহর নামে শুরু করছি।

নামাজের নিয়ম

প্রথম দুই রাকাআতের নিয়ম অন্যান্য ফরজ নামাজের মতোই।

তৃতীয় রাকাআতের জন্য দাঁড়ানোর সময় সুরা ফাতিহার পর অন্য যেকোনো একটি সুরা বা আয়াত পড়তে হয়। তারপর কিরাআত শেষ করার পর তাকবির বলে দু’হাত কান পর্যন্ত উঠিয়ে তাকবিরে তাহরিমার মতো হাত বাঁধতে হয়। তারপর নিঃশব্দে দোয়া কুনুত পড়তে হয়।

দোয়া কুনুত শেষ করার পর রুকু, সিজদা, তাশাহহুদ, দরূদ ও দোয়া মাছুরা পড়ে ছালাম ফিরানোর মাধ্যমে বিতরের নামাজ সমাপ্ত করতে হয়।

বিতর নামাজের ফজিলত

বিতর নামাজ একটি গুরুত্বপূর্ণ সুন্নাত। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, “বিতর নামাজ ওয়াজিব।” (আবু দাউদ)

পড়ার ফলে আল্লাহ তাআলা বান্দার প্রতি খুশি হন। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, “যে ব্যক্তি বিতরের নামাজ আদায় করবে, আল্লাহ তার প্রতি খুশি হবেন।” (তিরমিযি)

বিতর নামাজ পড়ার ফলে বান্দার জন্য বেহেশতের দরজা উন্মুক্ত হয়। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, “যে ব্যক্তি নিয়মিত বিতর নামাজ আদায় করবে, তার জন্য বেহেশতের আটটি দরজা খুলে দেওয়া হবে। সে যেকোনো দরজা দিয়ে ইচ্ছামতো প্রবেশ করতে পারবে।” (আবু দাউদ)

সুতরাং, প্রত্যেক মুসলমানের উচিত বিতরের নামাজ নিয়মিত

বেতের নামাজের নিয়ম ও সূরা
বেতের নামাজের নিয়ম ও সূরা
বেতের নামাজ কয় রাকাত

প্রথম দুই রাকাআতের নিয়ম অন্যান্য ফরজ নামাজের মতোই। তৃতীয় রাকাআতের জন্য দাঁড়ানোর সময় সুরা ফাতিহার পর অন্য যেকোনো একটি সুরা বা আয়াত পড়তে হয়। তারপর কিরাআত শেষ করার পর তাকবির বলে দু’হাত কান পর্যন্ত উঠিয়ে তাকবিরে তাহরিমার মতো হাত বাঁধতে হয়। তারপর নিঃশব্দে দোয়া কুনুত পড়তে হয়।

দোয়া কুনুত হলো একটি গুরুত্বপূর্ণ দোয়া। এটি পড়া সুন্নাত। দোয়া কুনুতের বাংলা অর্থ হলোঃ

হে আল্লাহ! আমাকে তাদের অন্তর্ভুক্ত করুন যাদের তুমি হেদায়েত করেছ। আমাকে সুস্থ রাখ তাদের মধ্যে যাদের তুমি সুস্থ রেখেছ। আমাকে অভিভাবকত্ব দাও তাদের মধ্যে যাদের তুমি অভিভাবকত্ব দিয়েছ। বরকত দাও আমার উপর যা কিছু তুমি আমাকে দিয়েছ। এবং আমাকে রক্ষা করো তোমার নির্ধারিত অনিষ্ট থেকে।

করার পর রুকু, সিজদা, তাশাহহুদ, দরূদ ও দোয়া মাছুরা পড়ে ছালাম ফিরানোর মাধ্যমে বিতরের নামাজ সমাপ্ত করতে হয়।

দোয়া কুনুত বাংলা অর্থসহ
দোয়া কুনুত
দোয়া কুনুত বাংলা উচ্চারণ

আল্লাহুম্মা ইন্না নাসতাঈ’নুকা, ওয়া নাস্ তাগ্ ফিরুকা, ওয়া নু”মিনু বিকা, ওয়া নাতাওয়াক্কালু ‘আলাইকা, ওয়া নুছনী আলাইকাল খাইর। ওয়া নাশ কুরুকা, ওয়ালা নাকফুরুকা, ওয়া নাখলাউ’, ওয়া নাতরুকু মাঁই ইয়াফজুরুকা।
আল্লাহুম্মা ইয়্যাকানা বুদু ওলাকানু ছল্লি ওয়ানাস জুদু ওয়া ইলাইকা নাসয়া। ওয়া না্হফিদু ওয়া নারজু রাহমাতাকা ওয়া নাখশা আজাবাকা ইন্না আজাবাকা বিলকুফফারি মুলহি্ক।

অর্থ:

হে আল্লাহ! আমরা তোমার সাহায্য চাই, তোমার কাছে ক্ষমা চাই, তোমার প্রতি ঈমান রাখি, তোমার উপর ভরসা করি এবং তোমার প্রতি ভালোবাসা বর্ধিত করি। আমরা তোমার কৃতজ্ঞ হয়ে চলি, অকৃতজ্ঞ হই না। আমরা তোমাকেই ত্যাগ করি এবং তোমার থেকে দূরে সরে যাই তাদেরকে, যারা তোমাকে ত্যাগ করে।

দোয়া কুনুত হলো বিতর নামাজের তৃতীয় রাকাআতের রুকু থেকে উঠে দাঁড়িয়ে পড়ার পর তাকবির বলে দু’হাত কান পর্যন্ত উঠিয়ে হাত বাঁধে নিঃশব্দে পড়া একটি গুরুত্বপূর্ণ দোয়া। এটি পড়া সুন্নাত।

আরো পড়ুনঃ এশার নামাজ কয় রাকাত সুন্নত কয় রাকাত এশার নামাজের সময় শুরু ও শেষ 

মাগরিবের নামাজের পর কোন সূরা পড়তে আসরের নামাজের সময় শুরু 

One thought on “এশার বেতের নামাজের নিয়ত এবং বেতের নামাজের নিয়ত বাংলা”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *