বিশুদ্ধ পানির বৈশিষ্ট্য কি

পানিতে কোন ভিটামিন থাকে

বিশুদ্ধ পানির বৈশিষ্ট্য কি

বিশুদ্ধ পানি হল পানিতে কোনও অপদ্রব্যের অনুপস্থিতি। এটি একটি রাসায়নিক পদার্থ যার রাসায়নিক সূত্র হল H2O। বিশুদ্ধ পানির বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নরূপ:

  • বর্ণহীন: বিশুদ্ধ পানি বর্ণহীন। এতে কোনও রঙের পদার্থ মিশ্রিত নেই।
  • গন্ধহীন: বিশুদ্ধ পানি গন্ধহীন। এতে কোনও গন্ধযুক্ত পদার্থ মিশ্রিত নেই।
  • স্বাদহীন: বিশুদ্ধ পানি স্বাদহীন। এতে কোনও স্বাদযুক্ত পদার্থ মিশ্রিত নেই।
  • pH মান 7: বিশুদ্ধ পানির pH মান 7। অর্থাৎ, এটি নিরপেক্ষ।
  • উচ্চ স্থিতিশীলতা: বিশুদ্ধ পানি স্থিতিশীল। এটি সহজেই পচন বা ক্ষয় হয় না।
  • উচ্চ তাপমাত্রা সহ্য করতে পারে: বিশুদ্ধ পানি উচ্চ তাপমাত্রা সহ্য করতে পারে। এটি ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে বাষ্পীভূত হয়।
  • উচ্চ জলীয়তা: বিশুদ্ধ পানিতে উচ্চ জলীয়তা থাকে। এটি অন্যান্য পদার্থের সাথে সহজেই মিশে যায়।
  • বিশুদ্ধ পানি বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়। এটি ঔষধ তৈরিতে, গবেষণাগারে, শিল্পখাতে এবং পানীয় হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

বিশুদ্ধ পানির সাথে খনিজ মিশ্রিত পানির পার্থক্য

খনিজ মিশ্রিত পানিতে বিভিন্ন খনিজ পদার্থ মিশ্রিত থাকে। এই খনিজ পদার্থগুলি পানির স্বাদ, গন্ধ এবং রঙের পরিবর্তন ঘটায়। খনিজ মিশ্রিত পানিকে অনেকে স্বাস্থ্যকর মনে করে থাকেন। তবে, এটি প্রমাণিত নয় যে খনিজ মিশ্রিত পানি সাধারণ পানির চেয়ে বেশি স্বাস্থ্যকর।

পানিতে কোন ভিটামিন থাকে
পানিতে কি কি ভিটামিন থাকে

বিশুদ্ধ পানিতে কোনও ভিটামিন থাকে না। ভিটামিন হল জৈব পদার্থ যা শরীরের স্বাভাবিক কার্যক্রমের জন্য প্রয়োজনীয়। এগুলি জটিল অণু যা শরীর নিজেই তৈরি করতে পারে না। তাই, ভিটামিনগুলি খাদ্য বা সম্পূরক থেকে পাওয়া প্রয়োজন।

তবে, প্রাকৃতিক উৎস থেকে পাওয়া পানিতে কিছু পরিমাণে ভিটামিন থাকতে পারে। যেমন, বৃষ্টির পানিতে ভিটামিন সি এবং ভিটামিন বি কমপ্লেক্স থাকতে পারে। তবে, এই ভিটামিনগুলির পরিমাণ খুবই কম। তাই, পানির মাধ্যমে ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব নয়।

ভিটামিনের বিভিন্ন ধরনের কাজ রয়েছে। যেমন, ভিটামিন এ দৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয়, ভিটামিন ডি হাড়ের জন্য প্রয়োজনীয়, ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য প্রয়োজনীয়। তাই, ভিটামিনের পর্যাপ্ততা রক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ।

ভিটামিনের চাহিদা পূরণের জন্য বিভিন্ন ধরনের ফল, শাকসবজি, ডাল, বাদাম এবং বীজ খাওয়া উচিত।

বৃষ্টির পানিতে কোন ভিটামিন থাকে

বৃষ্টির পানিতে কোন ভিটামিন থাকে

বৃষ্টির পানিতে ভিটামিন সি এবং ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের কিছু পরিমাণ থাকতে পারে। তবে, এই ভিটামিনগুলির পরিমাণ খুবই কম। তাই, বৃষ্টির পানি থেকে ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব নয়।

ভিটামিন সি একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি, কোলাজেন উৎপাদন এবং ত্বক, দাঁত এবং হাড়ের স্বাস্থ্য রক্ষায় সহায়তা করে। ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের বিভিন্ন উপাদান রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে থায়ামিন, রাইবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড, বায়োটিন, ফোলেট এবং ভিটামিন বি-12। এই ভিটামিনগুলি শক্তি উৎপাদন, কোষ বিভাজন, নার্ভ স্বাস্থ্য এবং রক্ত ​​তৈরিতে সহায়তা করে।

বৃষ্টির পানিতে ভিটামিন থাকার কারণ হল বায়ুমণ্ডলে কিছু অণুজীব থাকে যা তাদের বিপাক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ভিটামিন তৈরি করে। এই অণুজীবগুলি বায়ুমণ্ডলে থাকা ধুলাবালি, গাছপালা এবং অন্যান্য জৈব পদার্থ থেকে পুষ্টি গ্রহণ করে।

বৃষ্টির পানিতে ভিটামিনের পরিমাণ বিভিন্ন কারণে পরিবর্তিত হতে পারে। যেমন, বৃষ্টির পানি সংগ্রহ করার সময় এবং স্থানের উপর নির্ভর করে ভিটামিনের পরিমাণ কম বা বেশি হতে পারে।

বৃষ্টির পানিতে ভিটামিন থাকা সত্ত্বেও, এটি থেকে ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব নয়। তাই, ভিটামিনের চাহিদা পূরণের জন্য বিভিন্ন ধরনের ফল, শাকসবজি, ডাল, বাদাম এবং বীজ খাওয়া উচিত।

আরো পড়ুনঃ রাতে রসুন খাওয়ার উপকারিতা  গর্ভাবস্থায় কমলা খাওয়ার উপকারিতা

পানি পান করার ৬ টি সুন্নত

পানি পান করার ৬ টি সুন্নত হল:

  1. ডান হাত দিয়ে পান করা। কারণ, শয়তান বাম হাত দিয়ে পান করে।
  2. বসে পান করা। দাঁড়িয়ে পান করা নিষেধ।
  3. শুরুতে (বিসমিল্লাহ) বলে পানি পান করা এবং শেষে (আলহামদুলিল্লাহ) বলা ।
  4. তিন নিঃশ্বাসে পান করা, নিঃশ্বাস ফেলার সময় গ্লাস থেকে মুখ আলাদা করা।
  5. গ্লাসের ভাঙা অংশের দিক দিয়েপানি পান না করা।
  6. পান করার পর অন্যজনকে দিতে হলে প্রথমে ডান পাশের জনকে দেওয়া।

এছাড়াও, পানি পান করার সময় কিছু নিয়ম মেনে চলা উচিত। যেমন:

  • পরিষ্কার পাত্রে পানি পান করা।
  • পানি গরম বা ঠান্ডা না করে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় পান করা।
  • পানি বেশিক্ষণ ধরে না রাখা।
  • পানি পান করার পর মুখ ভালো করে ধুয়ে ফেলা।
  • এই সুন্নতগুলি পালন করলে পানি পান করা আরও স্বাস্থ্যকর এবং উপকারী হয়।
পানি পান করার দোয়া

পানি পান করার দোয়া দুটি ভাগে বিভক্ত। প্রথমে পান করার আগে এবং পরে পড়া দোয়া।

পান করার আগের দোয়া

بِسْمِ اللَّهِ

উচ্চারণ: বিসমিল্লাহি

অর্থ: আল্লাহর নামে

পান করার পরের দোয়া

الْحَمْدُ لِلَّهِ الَّذِي جَعَلَ الْمَاءَ طَهُورًا

উচ্চারণ: আলহামদুলিল্লাহিল জা‘আলাল-মাআ-তা তাহূরান।

অর্থ: সকল প্রশংসা আল্লাহর জন্য যিনি পানিকে পবিত্র করেছেন।

আরো পড়ুঃ পানি খেলে কি ত্বক ফর্সা হয় প্রতিদিন পালং শাক খেলে কি হয়

পানি দূষণের ৫টি ক্ষতিকর প্রভাব ছোলা ভুনা খাওয়ার উপকারিতা

3 thoughts on “বিশুদ্ধ পানির বৈশিষ্ট্য কি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *