জোহরের নামাজের শেষ সময় এবং যোহরের নামায কত রাকাত

জোহরের নামাজের শেষ সময়

জোহরের নামাজের শেষ সময়

যোহরের নামায কত রাকাত:


আজকের জোহরের নামাজের ওয়াক্ত শুরু দুপুর ১২:১৩ মিনিটে এবং জোহরের নামাজের ওয়াক্তের শেষ সময় বিকেল ৩:৪৩ মিনিটে।

আপনি যদি কিশোরগঞ্জ, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ-এ অবস্থান করেন, তাহলে আপনার জন্য জোহরের নামাজের শেষ সময় আজ বিকেল ৩:৪৩ মিনিট। এর পর জোহরের নামাজ পড়া মাকরুহ হবে।

তবে, যদি আপনি কোনো কারণে জোহরের নামাজের শেষ সময়ের পর নামাজ পড়তে পারেন, তাহলে তা আদায় করা যাবে। এক্ষেত্রে তা দেরীতে পড়ার কারণে কাযা হবে।

যোহরের নামায কত রাকাত
জোহরের নামাজ কত রাকাত ও নিয়ত?

যোহরের নামায কত রাকাত:

যোহরের নামায মোট ১০ রাকাত। এর মধ্যে চার রাকাত সুন্নাত, চার রাকাত ফরজ এবং দুই রাকাত সুন্নাত।

চার রাকাত সুন্নাত: যোহরের নামাযের আগে পড়া হয়।
চার রাকাত ফরজ: যোহরের নামাযের মূল অংশ।
দুই রাকাত সুন্নাত: যোহরের নামাযের পরে পড়া হয়।
মুসাফির অবস্থায় থাকলে চার রাকাত ফরজকে সংক্ষিপ্ত করে দুই রাকাত করা যায়। এক্ষেত্রে সুন্নাত না পড়ারও সুযোগ আছে।

চার রাকাত ফরজের সংক্ষিপ্ত নিয়ত:

নিয়ত করছি দুই রাকাত ফরজ নামাজ জোহরের, আল্লাহু আকবার।

জোহরের নামাজের নিয়ত করার সময়

  • মুখ বাঁকিয়ে কাতারে দাঁড়াতে হবে।
  • হাত বেঁধে নিয়ত করতে হবে।
  • নিয়ত করার সময় কেবলার দিকে মুখ করে দাঁড়াতে হবে।
  • নিয়ত করার সময় মনে মনে নিয়ত করতে হবে।
  • জোহরের নামাজের নিয়ত করার নিয়ম
  • নিয়ত করার সময় প্রথমে “নিয়ত করছি” বলে বলতে হবে।
  • তারপর নামাজের নাম উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর নামাজের রাকাতের সংখ্যা উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর নামাজের নামাযের নাম উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর “আল্লাহু আকবার” বলে নিয়ত শেষ করতে হবে।
  • জোহরের নামাজের নিয়ত করার উদাহরণ

এই নিয়তটি বললেই জোহরের নামাজের জন্য নিয়ত হয়ে যাবে।

আরো জানেনঃ ফজরের নামায আসরের নামাজ কয় রাকাত

যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ না পড়লে কি গুনাহ হবে?

যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ সুন্নাতে মুয়াক্কাদা। অর্থাৎ, এটি রাসূলুল্লাহ (সা.) নিয়মিত পড়তেন এবং মুসলমানদের জন্যও এটি আদায় করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

হাদিস থেকে জানা যায়, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, “যে ব্যক্তি যোহরের আগের এবং পরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ পড়বে, তার জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম হয়ে যাবে।”

সুতরাং, যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ না পড়লে গুনাহ হবে কিনা তা নিয়ে আলেমদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। তবে, অধিকাংশ আলেমের মতে, যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ না পড়লে গুনাহ হবে।

তবে, যদি কোনো ব্যক্তি কোনো কারণে যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ পড়তে না পারেন, তাহলে তিনি পরে পড়ে নিতে পারবেন। এক্ষেত্রে তা কাযা হবে।

সুতরাং, যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ পড়ার চেষ্টা করা উচিত। যদি কোনো কারণে পড়তে না পারেন, তাহলে পরে পড়ে নিতে হবে।

ফরজ নামাজের শেষ দুই রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়ার হুকুম কি?
ফরজ নামাজের শেষ দুই রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়ার হুকুম কি?

ফরজ নামাজের শেষ দুই রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়ার হুকুম ওয়াজিব। অর্থাৎ, এটি ছেড়ে দিলে নামাজ হবে না। হাদিস থেকে জানা যায়, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, “যে ব্যক্তি সূরা ফাতিহা পড়ে না, তার নামাজ হয় না।”

ফরজ নামাজের প্রথম দুই রাকাতে সূরা ফাতিহার সাথে অন্য একটি সুরা পড়াও ওয়াজিব। তবে, শেষ দুই রাকাতে শুধু সূরা ফাতিহা পড়াই ওয়াজিব।

ফরজ নামাজের শেষ দুই রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়ার কারণ হলো, এটি নামাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সূরা ফাতিহা পড়ার মাধ্যমে মুসল্লি আল্লাহর কাছে রহমত, বরকত ও ক্ষমা প্রার্থনা করে।

সুতরাং, ফরজ নামাজের শেষ দুই রাকাতে সূরা ফাতিহা পড়া অবশ্যই জরুরি।

আরো জানোনঃ সূর্য ওঠার কত মিনিট পর নামাজ পড়া যায়?

জোহরের নামাজে কি কি সুরা লাগে?

জোহরের নামাজে মোট আট রাকাত পড়া হয়। এর মধ্যে চার রাকাত ফরজ, দুই রাকাত সুন্নাত এবং দুই রাকাত নফল।

ফরজ নামাজের প্রথম দুই রাকাতে সূরা ফাতিহার সাথে অন্য একটি সুরা পড়া ওয়াজিব। তবে, শেষ দুই রাকাতে শুধু সূরা ফাতিহা পড়াই ওয়াজিব।

সুন্নাত নামাজের প্রথম দুই রাকাতে সূরা ফাতিহার সাথে অন্য একটি সুরা পড়া ওয়াজিব। তবে, শেষ দুই রাকাতে শুধু সূরা ফাতিহা পড়াই ওয়াজিব।

নফল নামাজের ক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট সুরা পড়ার কোন বিধান নেই। যেকোনো সুরা পড়া যায়।

সুন্নাত ও নফল নামাজে পড়ার জন্য কিছু সুরার নাম উল্লেখ করা হলো:

  • সূরা আল-ফাতিহা
  • সূরা আল-বাকারা
  • সূরা আলে ইমরান
  • সূরা আন-নিসা
  • সূরা আল-মায়িদা
  • সূরা আত-তাওবা
  • সূরা আল-ইমরান
  • সূরা আল-আরাফ
  • সূরা আন-নাহল
  • সূরা আল-আম্বিয়া
  • সূরা আল-হাজ্জ
  • সূরা আল-মুমিনুন
  • সূরা আল-ফুরকান
  • সূরা আল-শূরা

এই সুরাগুলোর মধ্যে যেকোনো একটি বা একাধিক সুরা পড়া যায়। তবে, সূরা ফাতিহা অবশ্যই পড়তে হবে।

আরো জানোনঃ যোহর নামায আসরের নামাজের সময় শুরু

যোহরের দুই রাকাত নফল নামাজের নিয়ত

যোহরের দুই রাকাত নফল নামাজের নিয়ত:

নিয়ত করছি দুই রাকাত সুন্নাত নামাজ জোহরের, আল্লাহু আকবার।

অর্থ:
আমি আল্লাহর উদ্দেশ্যে দুই রাকাত সুন্নাত নামাজ জোহরের পড়তে নিয়ত করলাম, আল্লাহু আকবার।

নিয়ত করার সময়

  • মুখ বাঁকিয়ে কাতারে দাঁড়াতে হবে।
  • হাত বেঁধে নিয়ত করতে হবে।
  • নিয়ত করার সময় কেবলার দিকে মুখ করে দাঁড়াতে হবে।
  • নিয়ত করার সময় মনে মনে নিয়ত করতে হবে।
  • নিয়ত করার নিয়ম
  • নিয়ত করার সময় প্রথমে “নিয়ত করছি” বলে বলতে হবে।
  • তারপর নামাজের নাম উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর নামাজের রাকাতের সংখ্যা উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর নামাজের নামাযের নাম উল্লেখ করতে হবে।
  • তারপর “আল্লাহু আকবার” বলে নিয়ত শেষ করতে হবে।
  • যেমন:

নিয়ত করছি দুই রাকাত সুন্নাত নামাজ জোহরের, আল্লাহু আকবার।

এই নিয়তটি বললেই যোহরের দুই রাকাত নফল নামাজের জন্য নিয়ত হয়ে যাবে।

জোহরের নামাজ জামায়াতে পড়ার নিয়ম

জোহরের নামাজ জামায়াতে পড়ার নিয়ম

নিয়ত করছি দুই রাকাত ফরজ নামাজ জোহরের, ইমামের পিছনে, আল্লাহু আকবার।
ইমামের সাথে জামায়াতে নামাজ পড়ার নিয়ম

ইমামের পিছনে দাঁড়াতে হবে।
ইমামের সাথে সালাম ফেরানো পর্যন্ত চুপ থাকতে হবে।
ইমামের সাথে সূরা ফাতিহা এবং অন্য একটি সুরা পড়তে হবে।
ইমামের সাথে রুকু, সিজদা, দাঁড়ানো, বসা ইত্যাদি যথাযথভাবে করতে হবে।
জোহরের নামাজ জামায়াতে পড়ার ধারাবাহিকতা

ইমাম সালাম ফিরানো শুরু করলে সাথে সাথে সালাম ফিরিয়ে নিতে হবে।
জোহরের নামাজ জামায়াতে পড়ার ফজিলত

হযরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, “যে ব্যক্তি জামায়াতে নামাজ পড়ে, তার জন্য একাকী নামাজের চেয়ে সাতগুণ বেশি সওয়াব রয়েছে।”

হযরত মুহাম্মদ (সা.) আরও বলেছেন, “যে ব্যক্তি জামায়াতে নামাজ পড়ে, সে যেন রাত জেগে নামাজ পড়ল।”

আরো পড়ুনঃ মাগরিবের নামাজ কয় রাকাত মাগরিবের নামাজের পর কোন সূরা পড়তে হয়

এশার নামাজের সময় শুরু ও শেষ

9 thoughts on “জোহরের নামাজের শেষ সময় এবং যোহরের নামায কত রাকাত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *