সরিষা ফুলের মধু কি জমে এবং সরিষার মধুর স্বাদ কেমন?সরিষা ফুলের মধু কি জমে এবং সরিষার মধুর স্বাদ কেমন?
সরিষা ফুলের মধুর উপকারিতা

সরিষা ফলের মধুর উপকারিতা

চিকিৎসকরা বলছেন,যে সব বয়সের মানুষ সরিষা ফুলের মধু খেতে পারেন। এতে কোনো ক্ষতি নেই। আর সরিষা ফুলের মধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, বি, সি। এই মধু একেবারেই কোলেস্টেরলমুক্ত। বিশেষ করে মধু রোগ প্রতিরোধ শক্তি বৃদ্ধি করে এবং হার্ট শক্তিশালী করে তুলে। শারীরিক দুর্বলতা দূরসহ পাকস্থলি সুস্থ রাখেএবং কোষ্ঠকাঠিন্য ও অনিদ্রা দূর করে। সরিষা ফুলের সাদা মধুতে ফ্রুক্টোজ ওগ্লোকোজ নামক দুই ধরনের সুগার থাকে। এছাড়াও সুক্রোজ ও মালটোজ খুব অল্প পরিমাণে রয়েছে। মধুর শর্করার ঘনত্ব এত বেশি যে এর মধ্যে কোন জীবাণু ১ ঘণ্টাও বাঁচতে পারে না।

খাটি মধু চেনার উপায়


মধুর রঙ দেখেই বলে দেয়া সম্ভব কোন ফুলের মধু। আর খেয়ে টেস্ট করলেতো সহজেই পার্থক্য করা যায়। তবে সেটা হতে হবে অরিজিনাল র মধু। বাজারে যেসব মধু পাওয়া যায় বেশিরভাগই প্রসেসড,মিক্সড অথবা ভেজাল করা তাই মধু খেয়ে বুঝা যায় না। সব একই রকম লাগে।

মধু জমে যাবে বা একেবারে তরল অবস্থায় থাকবে না। জমে যাওয়া মধু হবে ছোটো ছোটো দানাদার আকারের ।দানা যুক্ত মধু দেখতে কঠিন মনে হলেও জিহ্বায় দেয়ার পর মুখের হালকা গরম পাওয়ার সাথে সাথেই মিলিয়ে যাবে।মধু সেবনের পর সরিষা ফুলের স্বাদ ও ঘ্রানপাবেন।
মধু জমে গেলে দেখতে একদম ক্রীমের মতো হবে।যা চামচ দ্বারা কেটে কেটে খেতে হবে।

সরিষা ফুলের মধুর দাম


সাধারণত সরিষা ফুলের মধু কেজি হিশাবে বিক্রি করা হয়, যেমন ৫০০ গ্রাম ২৫০ টাকা / ১ কেজি ৪৯০ টাকা। আর এই দাম টা নির্ধারণ করা হয় মধু সংগ্রহ কারীর উপর।

সরিষা ফুলের মধুর বৈশিষ্ট্য

সরিষা ফুলের মধুর বৈশিষ্ট্য হল যে,এই মধু খুবই মিষ্টি হবে। রং হবে হালকা বর্ণের হলুদ । তবে এই মধুর সবচেয়ে বড় যে বৈশিষ্ট্য হল,যে সরিষা ফুলের মধু শীতকালে অল্প কিছু দিনের মধ্যেই জমে যায়। আর গরমের সময় জমতে একটু দেরি হয়, কয়েক সপ্তাহ বা ২/৩ মাস বা এর চেয়ে একটু বেশি সময় লেগে যেতে পারে।

সরিষা ফুলের মধু

দেশে উৎপাদিত মধুর একটি বড় অংশই আসে সরিষা ফুল থেকে। সব মধুর মত সরিষার ফুলের মধুর মাঝেও অনেক উপকারিতা রয়েছে । কিন্তু কিছু ভ্রান্তধারণার কারণে সরাসরি ভোক্তা পর্যায়ে এই মধুর চাহিদা কম। ফলে বিক্রির জন্য বহুজাতিক কোম্পানির ওপরই নির্ভরশীল হতে হয় খামারীদের। এতে নায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন খামারীরা।

সরিষার মধু কি জমে যায়?

অনেকে আমরা জানতে চাই, সরিষা ফুলের মধু জমে যায় কেন? এর উত্তর হচ্ছে সরিষা ফুলের মধু সংগ্রহ করার সময় এই মধু তরল অবস্থায় থাকে। এরপর নিম্ন তাপমাত্রায় মধু জমে যায়। কারন যে সকল মধুতে গ্লুকোজের পরিমান বেসি থাকে সে সকল মধু নিম্ন তাপমাত্রায় দ্রুত জমে যায়।

সরিষার মধু কি?

সরিষার মধু কি?

মধু মানুষের জন্য আল্লাহ তায়ালার প্রদত্ত এক অপূর্ব নেয়ামত। স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং যাবতীয় রোগ নিরাময়ে মধুর গুণ অপরিসীম। রাসূলুল্লাহ (সা.) একে খাইরুদ্দাওয়া বা মহৌষধ বলেছেন।
সরিষার মধু হচ্ছে মৌমাছি দ্বারা সরিষার ক্ষেত /ফুল থেকে মধু আহরণ করা।

সরিষা ফুলের মধু জমে যায় কেন

বাংলাদেশে যত প্রকার খাটি মধু চাষ করা হয় হয় তার মধ্যে সব থেকে বেসি পরিমান মধু উৎপাদন হয় সরিষা ফুলের খাঁটি মধু। সাধারনত সরিষা ফুলের মধু নিম্ন তাপমাত্রায় জমে যায়, আর জমে যাওয়ার ফলে এই মধুকে সরিষা ফুলের জমা মধু বা ক্রিম হানি বলা হয়ে থাকে।

মধুর অপকারিতা

মধুর অত্যধিক সেবন দাঁত এবং মাড়ি ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ায়। যাঁদের সবাধান থাকা দরকার ফ্রুকটোজ হল মধুতে পাওয়া চিনির প্রধান উৎস। মাথায় রাখতে হবে যে, ফ্যাটি লিভার রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এটি বিপজ্জনক হতে পারে। ফ্রুক্টোজ শক্তির অন্যান্য উৎসের তুলনায় ভিন্নভাবে বিপাক হয়।

মধু কি হার্টের জন্য ভালো?

খুব ভালো শক্তি প্রদায়ী খাদ্য বা পানীয় হল মধু । শক্তির ও তাপ এর ভালো উৎস হল মধু । মধু দেহের তাপ ও শক্তি জুগিয়ে শরীরকে সুস্থ রাখে ।মধু খেলে সহজেই হজম হয়। কারণ, এতে যে ডেক্সট্রিন থাকে, যা সরাসরি রক্তে প্রবেশ করে এবং তাৎক্ষণিকভাবে কাজ করে। পেটরোগা মানুষের জন্য মধু বেশ উপকারী ওষুধ । হার্টের জন্য মধু খুবই উপকারী। এই খাবারে রয়েছে এমন কিছু উপাদান যা কমায় ব্লাড প্রেশার কমায়।এমনকী রক্তে ফ্যাটের পরিমাণে কমিয়ে দেয়। আর হার্টবিট ঠিক রাখতে পারে।

সরিষার মধুর স্বাদ কেমন?

মধুর রঙ দেখেই বলে দেয়া সম্ভব কোন ফুলের মধু। আর খেয়ে টেস্ট করলেতো সহজেই পার্থক্য করা যায়। তবে সেটা হতে হবে অরিজিনাল মধুর। এই মধু খুবই মিষ্টি হবে। রং হবে হালকা বর্ণের হলুদ । তবে এই মধুর সবচেয়ে বড় যে বৈশিষ্ট্য হল,যে সরিষা ফুলের মধু শীতকালে অল্প কিছু দিনের মধ্যেই জমে যায়।

মধুর স্বাদ বাড়ানোর উপায়?

আপনি যদি মধুর স্বাদ বাড়াতে চান তাহলে আপনি মধু দিয়ে হানি নোট অথবা মধুময় বাদাম পানি খেতে পারেন।

মধু কি?

কালোজিরা ফুলের মধু খাওয়ার নিয়ম

মধুময় বাদাম খাওয়ার নিয়ম

লিচু ফুলের মধু কোথায় পাবেন ?
6 thoughts on “সরিষা ফুলের মধু কি জমে এবং সরিষার মধুর স্বাদ কেমন?”
  1. […] ঠান্ডা জনিত যেকোনো অসুখ খুব দ্রুত সারিয়ে তুলতে পারে । কালোজিরা এবং মধু সঠিক পদ্ধতিতে যদি আপনি খেতে পারেন তাহলে শরীরে সর্বপ্রথম যেটা ঘটবে সেটা হচ্ছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার এক শক্তিশালী দেয়াল তৈরি হবে  আপনার দেহে । […]

  2. […] এটি ত্বককে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে তুলত…তাই ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে, দিনে একবার হলেও ড্রাগন ফলের জুস পান করতে পারেন। এ ছাড়াও এটি চুলের জন্য খুব উপকারী হয় । হাড়ের জন্য ভালো ড্রাগন ফল। এর প্রায় ১৮ শতাংশ ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে , যা হাড়কে শক্তিশালী করে তোলে এবং হাড়ের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। […]

  3. […] এ সময় মৌমাছির পেটের ভেতরের কিছু জৈব রাসায়নিক পদার্থ বা এনজাইমও বের হয়। মধুর সঙ্গে এই এনজাইমের বিক্রিয়ায় তৈরি হয় গ্লুকোনিক অ্যাসিড ও হাইড্রোজেন পেরোক্সাইড। হাইড্রোজেন পেরোক্সাইড মধুতে কোনো জীবাণু জমতে দেয় না। ফলে মধু নষ্ট হয় না। […]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *